প্রবাস

প্রবাসীদের জোরপূর্বক শ্রম ঠেকাবে মালয়েশিয়া, সহযোগিতা দেবে যুক্তরাষ্ট্র

নিউজজি ডেস্ক ১৪ মে , ২০২২, ১৩:১৩:৫৪

  • প্রবাসীদের জোরপূর্বক শ্রম ঠেকাবে মালয়েশিয়া, সহযোগিতা দেবে যুক্তরাষ্ট্র

ঢাকা : জোরপূর্বক শ্রমের সমস্যা মোকাবিলায় মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সাথে একযোগে কাজ করবে মালয়েশিয়া। এ লক্ষ্যে একটি ওয়ার্কিং কমিটি গঠন করা হয়েছে। মূলত প্রবাসীদের জোরপূর্বক শ্রমে বাধ্যকরা ঠেকাতে দুই দেশ এক সঙ্গে কাজ করবে। যুক্তরাষ্ট্র তার শুল্ক ও সীমান্ত সুরক্ষা বিভাগের মাধ্যমে (ইউএস সিবিপি) এ সমস্যা মোকাবিলায় মালয়েশিয়া সরকারের সাথে কাজ করতে সম্মত হয়েছে।

শুক্রবার ( ১৩ মে ) ওয়াশিংটনে সফররত মালয়েশিয়ার মানবসম্পদমন্ত্রী এম সারাভানান এক বিবৃতিতে এ তথ্য জানিয়েছেন। বিবৃতিতে তিনি বলেছেন, কমিটি তথ্য আদান-প্রদানের উপর দৃষ্টি নিবদ্ধ রাখবে। যার মধ্যে নীতিমালা প্রণয়ন করা হবে। যা জোরপূর্বক শ্রম রোধে দেশের উদ্যোগকে সমর্থন করতে পারে। জোরপূর্বক শ্রম নিরসনে প্রতি তিন মাস অন্তর বৈঠক হবে।

আন্তর্জাতিক শ্রম সংস্থা (আইএলও)”র তালিকাভুক্ত সমস্ত বাধ্যতামূলক শ্রম সূচক যেমন পরিচয়পত্র সংরক্ষণ, অত্যধিক ওভারটাইম এবং মজুরি আটকে রাখার মতো বিষয়গুলো নিয়ে আলোচনা হয়েছে। ইউএস ডিওএল-এর সাথে সহযোগিতার বিষয়ে, প্রযুক্তি স্থানান্তর, সক্ষমতা বৃদ্ধি এবং শিক্ষানবিশ প্রোগ্রামগুলিতে তার দক্ষতা ভাগ করে নিতে সম্মত হয়েছে।

বিভাগটি পরামর্শ দিয়েছে, মালয়েশিয়া শ্রমিকদের ট্রেড ইউনিয়নের গুরুত্ব সম্পর্কে এক্সপোজার প্রদান করে, এটি ট্রেড ইউনিয়ন আইন ১৯৫৯ এর সংশোধনীর সাথে সঙ্গতিপূর্ণ যা জুলাই মাসে সংসদে পেশ করা হবে।

সারাভানান বলেন, ইউএস সিবিপি চলতি মাসের শেষের দিকে মালয়েশিয়ায় একটি কর্ম সফর করবে এবং দেশের শিল্প মালিকদের সাথে একটি কর্মশালা করবে। ওয়ার্কশপটি জোরপূর্বক শ্রমের উপাদানগুলির সাথে সম্পর্কিত বিষয়গুলির উপর আলোকপাত করবে। যা শিল্প মালিকদের এড়ানো উচিত যাতে তাদের পণ্যগুলি মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের বাজারে প্রবেশ নিষিদ্ধ করা না হয়।

তিনি বলেন, তার এ কর্মক্ষম সফর জোরপূর্বক শ্রম রোধে দ্বিপাক্ষিক সহযোগিতার সুযোগ উন্মুক্ত করেছে এবং সেই সাথে জোরপূর্বক শ্রম ও শিশু শ্রম সমস্যা মোকাবিলায় মালয়েশিয়ার মুখোমুখি চ্যালেঞ্জগুলি আরও ভালভাবে বোঝার জন্য মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের জন্য একটি প্ল্যাটফর্ম হয়েছে। যুক্তরাষ্ট্র মালয়েশিয়া সরকারের প্রচেষ্টার গভীরভাবে প্রশংসা করে। একই সাথে গোটা দেশে জোরপূর্বক শ্রমের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে কৌশলগত সহযোগিতা অব্যাহত রাখার আশ্বাস দিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র।

জোরপূর্বক শ্রম সমস্যা সমাধানে তিনি ইউএস সিবিপি এক্সিকিউটিভ অ্যাসিস্ট্যান্ট কমিশনার অ্যানমারি হাইস্মিথ এবং ইউনাইটেড স্টেটস ডিপার্টমেন্ট অফ লেবার (ইউএস ডিওএল) আন্তর্জাতিক বিষয়ক ডেপুটি আন্ডার সেক্রেটারি থিয়া লির সাথেও বৈঠক করার কথা জানিয়েছেন।

পাঠকের মন্তব্য

লগইন করুন

ইউজার নেম / ইমেইল
পাসওয়ার্ড
নতুন একাউন্ট রেজিস্ট্রেশন করতে এখানে ক্লিক করুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ