দেশ

ইতিহাসের দুইশ বছরের নীরব স্বাক্ষী ঐতিহ্যবাহী মসজিদ

বরিশাল অফিস ১৪ জানুয়ারি, ২০২২, ১৫:৪৩:২৪

  • ছবি: নিউজজি

বরিশাল: বাহারি নকশা ও কারুকার্য খচিত নয়নাভিরাম প্রায় দুইশ বছরের ইতিহাসের নীরব স্বাক্ষী হয়ে অযত্ন-অবহেলায় পরিত্যক্ত অবস্থায় দাঁড়িয়ে আছে ঐতিহ্যবাহী জামে মসজিদ। জেলার আগৈলঝাড়া উপজেলার বাগধা ইউনিয়নের আমবৌলা গ্রামের মরহুম কালু হাওলাদারের বাড়িতে এই মসজিদের অবস্থান।

মসজিদটি দেখার জন্য প্রায়ই দেশের বিভিন্নস্থান থেকে লোকজনের সমাগম ঘটে। প্রত্নতত্ত্ব অধিদপ্তরের মাধ্যমে ঐতিহ্যবাহী এ মসজিদটি সংস্কার করা হলে দর্শনার্থীদের কাছে আরও আকর্ষণীয় হয়ে উঠতে পারে বলে জানিয়েছেন আগত দর্শনার্থী ও স্থানীয় বাসিন্দারা।

দীর্ঘদিন অযত্ন ও অবহেলায় পড়ে থাকার পর এলাকাবাসী ওই মসজিদের পার্শ্ববর্তীস্থানে নতুন করে একটি মসজিদ নির্মাণ করে ইবাদত-বন্দেগি করছেন। অথচ দুইশ বছরের পুরনো ওই এলাকার সর্বপ্রথম মসজিদটি অযত্ন অবহেলায় পড়ে রয়েছে।

এলাকার প্রবীণ ব্যক্তিরা জানিয়েছেন, তাদের পূর্বপুরুষদের সময়ে ইট-সুরকি দিয়ে এ মসজিদটি নির্মাণের সময় স্থানীয় প্রভাবশালী এক জমিদারবাড়ি থেকে কঠোর হুকুম আসে। জমিদার বাড়িতে ইটের গাঁথুনি না হয়ে প্রজাদের বাড়িতে ইটের গাঁথুনি হতে পারবে না বলে নির্দেশ দেয়া হয়। পরবর্তীতে উপায়ন্তর না পেয়ে বাধ্য হয়ে আল্লাহতায়ালার ঘর মসজিদ নির্মাণের স্বার্থে আগে জমিদার বাড়িতে পাকা পুকুরের ঘাটলা ও একটা ঘর নির্মাণ করে দেয়া হয়। পরবর্তীতে ইট-সুরকি দিয়ে মসজিদটি নির্মাণ করা হয়েছে।

বর্তমানে ইতিহাসের নীরব স্বাক্ষী হয়ে অযত্ন অবহেলায় পরিত্যক্ত অবস্থায় দাঁড়িয়ে থাকা বাহারি নকশা ও কারুকার্যখচিত নয়নাভিরাম ঐতিহ্যবাহী এ মসজিদের চারিপাশে লতা-পাতা, গাছপালায় ঝোপঝাড়ে একাকার হয়ে রয়েছে। এখনও প্রতিদিন বাড়ির লোকজনে সন্ধ্যা হলে ওই পরিত্যক্ত মসজিদে মোমবাতি জ্বালিয়ে সন্ধ্যাবাতি দিচ্ছেন।

আগৈলঝাড়া উপজেলার প্রত্যন্ত অঞ্চলে কারুকার্যখচিত ঐতিহ্যবাহী এ মসজিদটি ওই এলাকার অসংখ্য ইতিহাসের নীরব স্বাক্ষী হয়ে আছে।

নিউজজি/হামা/নাসি 

পাঠকের মন্তব্য

লগইন করুন

ইউজার নেম / ইমেইল
পাসওয়ার্ড
নতুন একাউন্ট রেজিস্ট্রেশন করতে এখানে ক্লিক করুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ