দেশ

গোয়াইনঘাটে হত্যাকাণ্ড: দুটি কারণ নিয়ে এগোচ্ছে পুলিশ

সিলেট প্রতিনিধি ১৬ জুন, ২০২১, ১৮:৩২:৫৯

  • ছবি : সংগৃহীত।

সিলেট:  জেলার গোয়াইনঘাট উপজেলায় দুই শিশুসহ মায়ের গলা কাটা মরদেহ উদ্ধারের ঘটনায় এর রহস্য উন্মোচনে দুটি ক্লু নিয়ে কাজ করছে পুলিশ। হত্যাকাণ্ডে ব্যবহৃত বটি জব্দ করা হয়েছে। পুলিশের ধারণা পারিবারিক কলহে অথবা মামার বাড়ির সম্পত্তির ভাগ নেয়া নিয়ে এই হত্যাকাণ্ড ঘটে থাকতে পারে।

নিজ ঘরের বটির আঘাতেই তাদের মৃত্যু হয়েছে। সিআইডির ক্রাইম সিন ইউনিটের একটি দল ঘটনাস্থল থেকে আলামত হিসেবে ওই বটিসহ আরো কিছু জিনিসপত্র জব্দ করেছে। বুধবার (১৬ জুন) সকাল সাড়ে ৭টার দিকে গোয়াইনঘাট উপজেলার ফতেহপুর ইউনিয়নের বিন্নাকান্দি দক্ষিণ পাড়ায় নিজবাড়ি থেকে তাদের মরদেহ উদ্ধার করা হয়।

নিহতরা হলেন- গোয়াইনঘাট উপজেলার ফতেহপুর ইউনিয়নের বিন্নাকান্দি দক্ষিণ পাড়া গ্রামের হিফজুর রহমানের স্ত্রী আলিমা বেগম (৩৫) আট বছরের ছেলে মিজানুর রহমান ও তিন বছরের শিশুকন্যা তানিশা বেগম। এ সময় আহত অবস্থায় নিহতের স্বামী হিফজুর রহমানকে (৩৮) উদ্ধার করে সিলেট এমএজি ওসমানী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের ভর্তি করা হয়েছে। তবে তার অবস্থা শঙ্কামুক্ত বলে জানা গেছে।

খবর পেয়ে সিলেট রেঞ্জের ডিআইজি মো. মফিজ উদ্দিন আহম্মেদ, জেলার পুলিশ সুপার মোহাম্মদ ফরিদ উদ্দিনসহ পুলিশের একাধিক দল ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে।

এ বিষয়ে জেলার পুলিশ সুপার মোহাম্মদ ফরিদ উদ্দিন বলেন, দুটি সম্ভাব্য কারণকে সামনে রেখে পুলিশ কাজ করছে। এর একটির হচ্ছে পার্শ্ববর্তী রাধানগর গ্রামে শ্যালিকার বিয়ে নিয়ে স্ত্রীর সঙ্গে স্বামীর ঝগড়া। আরেকটি হিফজুর রহমান তার মামার বাড়িতে থাকেন। মায়ের সম্পত্তির ভাগ মামার বাড়ি থেকে আদায় নিয়ে বিরোধ রয়েছে। এ দুটি কারণকে সামনে রেখে মামা-মামিসহ আশপাশের অন্তত পাঁচ থেকে ছয়জনকে আমরা প্রাথমিকভাবে জিজ্ঞাসাবাদ করেছি।

তিনি আরো বলেন, আশা করছি খুব শিগগিরই আমরা এই হত্যাকাণ্ডের ক্লু উদঘাটন করতে পারব। পুলিশের একাধিক বিভাগের লোকজন এ নিয়ে কাজ করছে।

স্থানীয়রা জানান, সকালে প্রতিবেশীরা হিফজুর রহমানের ঘরের ভেতর থেকে গোঙানির শব্দ পান। ডাকাডাকি করা হলেও কেউ সাড়া দিচ্ছিলেন না। ঘরের দরজা খোলা পেয়ে প্রতিবেশীরা ভেতরে ঢুকে চারজনকে রক্তাক্ত অবস্থায় পড়ে থাকতে দেখেন। তাদের ঘাড়ে ও মাথাসহ শরীরের বিভিন্ন স্থানে ধারালো অস্ত্র দিয়ে কোপানোর চিহ্ন রয়েছে। মা ও দুই শিশু মৃত ছিলেন। আহত হিফজুরকে হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

গোয়াইনঘাট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবদুল আহাদ বলেন, ডিআইজি ও জেলা পুলিশ সুপার ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন। তাদের নির্দেশনায় কাজ করা হচ্ছে।

নিউজজি/ এসআই

পাঠকের মন্তব্য

লগইন করুন

ইউজার নেম / ইমেইল
পাসওয়ার্ড
নতুন একাউন্ট রেজিস্ট্রেশন করতে এখানে ক্লিক করুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

copyright © 2021 newsg24.com | A G-Series Company
Developed by Creativeers