শিল্প-সংস্কৃতি
  >
গ্যালারি

‘জয়নুল আবেদিনকে নিয়ে প্রামাণ্যচিত্রের অধিকাংশই ভুয়া চিত্রকর্ম’

নিউজজি প্রতিবেদক ১২ মে , ২০১৯, ১৩:০৩:২১

  • ‘জয়নুল আবেদিনকে নিয়ে প্রামাণ্যচিত্রের অধিকাংশই ভুয়া চিত্রকর্ম’

সংস্কৃতি মন্ত্রণালয় ২০১৮-১৯ অর্থবছরে বাংলাদেশ জাতীয় জাদুঘরকে ১৪ জন বরেণ্য ব্যক্তির জন্ম ও মৃত্যুবার্ষিকী পালনের নির্দেশনা প্রদান করেছে। তারই অংশ হিসেবে শিল্পাচার্য জয়নুল আবেদিন স্মরণে ১১ মে শনিবার জাতীয় জাদুঘরে ‘শিল্পাচার্য জয়নুল আবেদিন: শিল্পের শিক্ষাগুরু’ শীর্ষক সেমিনারের আয়োজন করা হয়। পাশাপাশি শিল্পাচার্য জয়নুল আবেদিনকে নিয়ে  প্রদর্শিত হয় প্রামাণ্যচিত্র। 

এতে যে ছবিগুলো দেখানো হয়, তার বেশির ভাগই ফেক (ভুয়া) ছবি বলে দাবি করেন শিল্পাচার্য জয়নুল আবেদিনের ছেলে মইনুল আবেদিন। ক্ষোভ প্রকাশ করে তিনি বলেন, ‘বাবার আঁকা নয়, এমন ছবি নিয়ে প্রামাণ্যচিত্র বানানো হয়েছে। এটা খুব দুঃখজনক। জাদুঘরের মতো দায়িত্বশীল প্রতিষ্ঠানের কাছে এমনটা কাম্য নয়।’ 

তিনি আরও বলেন, ‘বাবা শিল্প চর্চার জন্য জীবনের পুরোটা সময় ব্যয় করেছেন। কিন্তু দুঃখের বিষয় হলো, বাবার অনেক কাজ এখন নকল পাওয়া যাচ্ছে। বিভিন্ন জাদুঘরেও নকল ছবি দেখা গেছে। অথচ বাবার ছবি নকল হওয়া নিয়ে সংশ্লিষ্ট কারও মাথাব্যথা নেই। ভুয়া ছবি নিয়ে ঘটা করা নিলাম আয়োজন হওয়ার মতোও ঘটনা ঘটেছে!’

ভুয়া ছবি নিয়ে কেন প্রামাণ্য চিত্র বানালেন, প্রদর্শন করলেন? প্রশ্নটি করা হয় জাদুঘর কিপার (জনশিক্ষা) শিহাব শাহরিয়ারকে। জবাবে তিনি বলেন, ‘আমরা নেট থেকেই ছবিগুলো নিয়েছি। ফেক ছবি আমরা চিনব কিভাবে?’ সেমিনারে তিনি লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন।

শিল্পাচার্য জয়নুল আবেদিনকে নিয়ে আরও গবেষণা প্রয়োজন বলে সেমিনারে মন্তব্য করেন শিল্পসমালোচক অধ্যাপক মঈনুদ্দীন খালিদ। তিনি বলেন, ‘শিল্পাচার্য জয়নুল আবেদিন তথাকথিত জীবনের কাছে হার মানেননি। গ্রামীণ জনগোষ্ঠীর জনজীবনের প্রতি ছিল তাঁর আকুল আবেদন। ছবি আঁকার আগে ছবির প্রেক্ষাপট মানুষের মর্মকথা বুঝতে চেষ্টা করতেন। তারপর তিনি ছবি আঁকতেন। তিনি বলতেন, নদীর ছবি আঁকার আগে পানির দোলনই আগে বুঝতে হবে।’

সেমিনারে মূল প্রবন্ধ লিখেছেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের চারুকলা অনুষদের সহকারী অধ্যাপক দুলাল চন্দ্র গাইন। তাঁর লেখাটি পাঠ করেন জাদুঘরের কিপার শিহাব শাহরিয়ার। বক্তব্যের সূত্র ধরে আলোচনা করেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের চারুকলা অনুষদের অধ্যাপক ফরিদা জামান, শিল্পসমালোচক অধ্যাপক মঈনুদ্দীন খালিদ এবং শিল্পীপুত্র মইনুল আবেদিন। সভাপতিত্ব করেন বাংলাদেশ জাতীয় জাদুঘর বোর্ড অব ট্রাস্টিজের সভাপতি শিল্পী হাশেম খান।

নিউজজি/এসএফ

পাঠকের মন্তব্য

লগইন করুন

ইউজার নেম / ইমেইল
পাসওয়ার্ড
নতুন একাউন্ট রেজিস্ট্রেশন করতে এখানে ক্লিক করুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

copyright © 2021 newsg24.com | A G-Series Company
Developed by Creativeers