শিক্ষা

খুবির ২ শিক্ষার্থী বহিষ্কারাদেশে ইবি শিক্ষার্থীদের মানববন্ধন

ইবি প্রতিনিধি ২৪ জানুয়ারি , ২০২১, ১৫:৫৩:২৬

  • ছবি : নিউজজি

ইবি: খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের (খুবি) বহিষ্কৃত দুই শিক্ষার্থীর বহিষ্কারাদেশ প্রত্যাহার চেয়ে মানববন্ধন করেছেন ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের সাধারণ শিক্ষার্থীরা। রোববার (২৪ জানুয়ারি) বেলা ১১টায় বিশ্ববিদ্যালয়ের ডায়না চত্বরে আয়োজিত এক মানববন্ধন থেকে তারা এ দাবি জানান।

মানববন্ধনে শিক্ষার্থীদের হাতে পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ে বহিষ্কার খেলা বন্ধ কর, আবিষ্কার নয়, বহিষ্কারে আছি, স্বৈরাচারী প্রশাসন ধিক্কার, ধিক্কার, কথায় কথায় শিক্ষক, শিক্ষার্থী বহিষ্কার বন্ধ কর, পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয় কি শুধু বহিষ্কারের জন্য? সহ বিভিন্ন ফেস্টুন দেখা যায়।

বিশ্ববিদ্যালয়ের মাস্টার্সের শিক্ষার্থী শামিমুল ইসলাম সুমনের সঞ্চালনায় মানববন্ধনে বক্তব্য দেন রায়হান বাদশা রিপন, আব্দুর রউফ, জি কে সাদিক, মোস্তাক আহমেদ, হেনায়েত কবির প্রমুখ। এছাড়া মানববন্ধনে বিভিন্ন বিভাগের শিক্ষার্থীরা উপস্থিত ছিলেন।

মানববন্ধনে বক্তারা বলেন, খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের বহিষ্কারের মাধ্যমে প্রশাসন এটিই দেখিয়ে দেয় যে, তার শিক্ষার্থীদের কোনো দায়ভার নিতে চায় না। ইতোমধ্যে বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ে হল বন্ধ রেখেই পরীক্ষা শুরু হয়েছে। শিক্ষার্থীরা এসে কোথায় থাকবে এ ব্যপারে প্রশাসন কিছু ভাবছে না। আমরা চুপ থাকলে প্রশাসন আরো জেঁকে বসবে।

খুবি শিক্ষার্থীদের বহিষ্কারাদেশ প্রত্যাহার চেয়ে তারা বলেন, খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের দাবিগুলো একটিও রাষ্ট্রের বিরুদ্ধে যায় নাই, প্রশাসনের বিরুদ্ধেও যায় নাই। বিশ্ববিদ্যালয় যদি শিক্ষার্থীদের যায়গা হয় তাহলে শিক্ষার্থীরা দাবি আদায়ে কথা বলে বহিষ্কার হবে কেন?

মানববন্ধনে বক্তারা আশা করেন, শিক্ষার্থীদের ওপর জঘন্য একটা সিদ্ধান্ত নিয়েছে খুবি প্রশাসন। আশা করি তারা তাদের ভুল বুঝতে পেরে সে অবস্থান থেকে ফিরে আসবে।

মানববন্ধনে বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্র মৈত্রী ও ছাত্র ইউনিয়ন ইবি সংসদ একাত্বতা পোষণ করে।

উল্লেখ্য, খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ে গত বছরের জানুয়ারি মাস থেকে শিক্ষার্থীদের মাসিক বেতন-ফি কমানো, আবাসন সংকট সমাধান, দ্বিতীয় পরীক্ষণের ব্যবস্থাসহ পাঁচ দফা দাবিতে আন্দোলন শুরু করেন শিক্ষার্থীরা। এ সময় শিক্ষকদের সাথে অসদাচরণ, তদন্ত কমিটিকে সহযোগিতা না করাসহ বিভিন্ন কারণে ওই দুই শিক্ষার্থীকে বিভিন্ন মেয়াদে বহিষ্কারের সিদ্ধান্ত নেয় বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ। তাদের আন্দোলনের সাথে সংহতি জানানোর কারণে বিশ্ববিদ্যালয়ের দুই শিক্ষককে অপসারণ এবং একজন শিক্ষককে স্থায়ীভাবে বহিষ্কার করে। বহিষ্কারাদেশ প্রত্যাহারের দাবিতে দুই শিক্ষার্থী আমরণ অনশন কর্মসূচি শুরু করেছেন। মঙ্গলবার সন্ধ্যা সাতটা থেকে শুরু হওয়া অনশন কর্মসূচি এখনো অব্যাহত আছে।

 

নিউজজি/এসএম

পাঠকের মন্তব্য

লগইন করুন

ইউজার নেম / ইমেইল
পাসওয়ার্ড
নতুন একাউন্ট রেজিস্ট্রেশন করতে এখানে ক্লিক করুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

copyright © 2021 newsg24.com | A G-Series Company
Developed by Creativeers