বিনোদন

শিপন-টয়ার ‘তেপান্তরের মাঠ পেরিয়ে’

নিউজজি প্রতিবেদক  সেপ্টেম্বর ১৬, ২০২১, ১৮:২৯:৪৫

  • শিপন ও টয়া। ছবি: সংগৃহীত

শুকনো মৌসুমে তেপান্তরের মাঠের সবুজ ধান ক্ষেতের আল ধরে কাকতাড়ুয়ার পিছে ছুটে বেড়াতো শফিক আর আয়েশা। বর্ষাকালে বৃষ্টির পানিতে ডুবে তেপান্তরের মাঠ জলে টইটম্বুর হলে শাপলা ফুলের গয়না পরিয়ে জামাই বৌ খেলতো তারা। পুতুল খেলার বয়স থেকে যৌবন কালে এসেও তারা দু’জন জামাই বৌ খেলতো। তখন থেকে আয়েশা স্বপ্ন দেখে কোন একদিন শফিকের হাত ধরে ভালোবেসে সে তেপান্তরের মাঠ পেরোবে।

ভালোবাসার আকুতি ভরা ভিন্ন ধাঁচের গল্পের বৈচিত্র নিয়ে তরুণ নির্মাতা সীমান্ত সজল নির্মাণ করেছেন বিশেষ টেলিফিল্ম ‘তেপান্তরের মাঠ পেরিয়ে’। এতে বিভিন্ন চরিত্রে অভিনয় করেছেন- মুমতাহিনা চৌধুরী টয়া, শিপন মিত্র, আবুল হায়াত ও দিলারা জামান। 

এ প্রসঙ্গে টয়া বলেন, ‘নির্মাতা সীমান্ত সজলের সাথে এটা আমার প্রথম কাজ। হোয়াটসঅ্যাপে গল্প পড়েই আমার ভালো লেগে যায়। ভালোলাগা থেকেই ভিন্ন চরিত্রে নিজেকে উপস্থাপন করার ইচ্ছা নিয়ে কাজটি করতে আসি। শুটিং সেটে কাজ করতে এসে নতুন এক সীমান্ত সজলকে খুঁজে পাই। এত যত্ন নিয়ে কাজ করেছেন তিনি যা আমাকে সত্যি মুগ্ধ করেছে।’

তিনি আরো বলেন, ‘তেপান্তরের মাঠ পেরিয়ে গল্পের সময়কে নির্মাতা দুই ভাগে ভাগ করেছেন। মুক্তিযুদ্ধের আগের গল্প আর দেশ স্বাধীনের পর বর্তমান প্রেক্ষাপটে এই সময়ের গল্প। আমার ভাগে পড়ে দেশ স্বাধীনের আগে ষাট দশকের প্রেক্ষাপট। সময়কে সঠিকভাবে তুলে ধরার জন্য পোশাক পরিকল্পনা নিয়ে নিখুঁত গবেষণা করেই কাজটি করা হয়। গল্পটি আমি আগে থেকেই বলে দিতে চাই না। চমক থাকুক দর্শকদের জন্য। তবে এক কথায় বলবো- অনেকদিন পরে একটা ভালো স্ক্রিপ্টে কাজ করে তৃপ্তি পেলাম। আশা করি, দর্শকদের অনেক ভালো লাগবে।’

শিপন মিত্র বলেন, ‘খুবই ইউনক এবং চমৎকার একটি গল্প নিয়ে নাটকটি নির্মিত হয়েছে। স্ক্রিপ্ট পড়ার আগে পরিচালকের মুখে গল্পটা শুনে সাথে সাথেই কাজটি করতে রাজি হই। গল্পের কনসেপ্ট, চিত্রনাট্য, ডিরেকশন, কস্টিউম ডিজাইন, আর্ট ডিরেকশন, প্রপস এর প্রাসঙ্গিক ব্যবহার সত্যি মুগ্ধ করার মতো। স্ক্রিপ্ট পাওয়ার পর থেকে শুটিং শেষ না হওয়া পর্যন্ত আমি ব্যক্তি শিপন মিত্র ছিলাম না। ছিলাম গল্পের চরিত্র শফিক। আমি বর্ষীয়ান অভিনেতা আবুল হায়াতের যৌবন কালের চরিত্রের রূপদান করেছি। সময়টা ষাট দশকের। কাজটা করতে পেরে আমি অনেক আনন্দিত।’

নির্মাতা সীমান্ত সজল বলেন, ‘তেপান্তরের মাঠ পেরিয়ে আমার অনেক যত্ন, অনেক ভালোলাগা, ভালোবাসার কাজ। স্ক্রিপ্ট লিখতে গিয়ে রাতে আমি যেমন কেঁদেছি, শুটিং করতে গিয়েও মনিটরে বসে আমি কেঁদেছি। আশা করি, টেলিফিল্মটি দেখতে গিয়ে বাংলাদেশের প্রতিটি দর্শকও চোখের জলে ভাসবেন।’

সজল আরো বলেন, ‘কাজটা সুন্দর করে করার জন্য আমাকে সর্বাত্মক সমর্থন করার জন্য চ্যানেল আইয়ের প্রতি কৃতজ্ঞতা। আমি আন্তরিক কৃতজ্ঞতা জানাই গল্পের কেন্দ্রিয় চরিত্র টয়া, শিপন মিত্র, আবুল হায়াত ও দিলারা জামানের প্রতি। ‘তেপান্তরের মাঠ পেরিয়ে’ বিশেষ টেলিফিল্মটি পরিবারের সবাইকে নিয়ে দেখার সাদর আমন্ত্রণ।’

নির্মাতা সূত্রে জানা গেছে, শুক্রবার (১৭ সেপ্টেম্বর) বিকেল ৩ টায় চ্যানেল আইতে এই বিশেষ টেলিফিল্মটি প্রচারিত হবে।

নিউজজি/রুআ 

পাঠকের মন্তব্য

লগইন করুন

ইউজার নেম / ইমেইল
পাসওয়ার্ড
নতুন একাউন্ট রেজিস্ট্রেশন করতে এখানে ক্লিক করুন