ফিচার
  >
ব্যক্তিত্ব

বাপ্পা মজুমদার: সস্তা জনপ্রিয়তার স্রোতে ভেসে যাননি যে শিল্পী

নিউজজি প্রতিবেদক ৫ ফেব্রুয়ারি , ২০২১, ১৬:১৮:৪৪

  • বাপ্পা মজুমদার: সস্তা জনপ্রিয়তার স্রোতে ভেসে যাননি যে শিল্পী

শূন্য দশক থেকে বর্তমান সময়; দেশের সঙ্গীতে পরিবর্তন এসেছে অনেক। ক্যাসেটের যুগ পার করে আসে সিডির যুগ, সেটাও শেষ হয়ে আসে অনলাইন, ইউটিউব তথা ডিজিটাল মাধ্যম। সময়ের এসব পরিবর্তনের পালে তাল দিয়ে চলছেন সবাই। তবে অধিকাংশই গা ভাসিয়েছেন সস্তা জনপ্রিয়তার স্রোতে। মানের কথা চিন্তা না করে কেবল গান করে চলেছেন, উদ্দেশ্য শুধু ইউটিউবে ভিউ পাওয়া; রাতারাতি পরিচিতি পাওয়া।

কিন্তু এই সস্তা জনপ্রিয়তার স্রোতে যিনি গা ভাসাননি, যিনি সর্বদা চলেছেন নিজের বানানো পথে, তিনি বাপ্পা মজুমদার। দীর্ঘ সঙ্গীত জীবনে তিনি মানহীনতার সঙ্গে আপোষ করেননি। নিজের বৈশিষ্ট্যের প্রমাণ দিয়ে যাচ্ছেন কঠিনতম সময়েও।

এখনো রুচিশীল, মানসম্মত গান শুনতে ইচ্ছে করলে শ্রোতারা ছুটে যান বাপ্পা মজুমদারের গানে। কারণ তিনি এমন সব গান সৃষ্টি করেছেন, যেগুলোর আবেদন ফুরায়নি, কখনো ফুরাবেও না।

আজ ৫ ফেব্রুয়ারি নন্দিত এই সঙ্গীতশিল্পীর জন্মদিন। শুভ জন্মদিন বাপ্পা মজুমদার।

১৯৭২ সালের আজকের দিনে বাপ্পা মজুমদার জন্মগ্রহণ করেছিলেন ঢাকায়। তার পুরো নাম শুভাশিস মজুমদার বাপ্পা। তার বাবা ছিলেন সঙ্গীতজ্ঞ ওস্তাদ বারীণ মজুমদার এবং মা ইলা মজুমদার। অর্থাৎ বাপ্পার জন্ম ও বেড়ে ওঠা সঙ্গীত পরিবারেই।

বাবা-মা দুজনই শাস্ত্রীয় সঙ্গীত শিল্পী হওয়ায় বাপ্পা মজুমদারকে বাড়ির বাইরে গান শিখতে যেতে হয় নি। তার সঙ্গীতের হাতেখড়ি শুরু হয় বাবা-মার কাছেই। পরবর্তীতে ওস্তাদ বারীন মজুমদারের সঙ্গীত শিক্ষা প্রতিষ্ঠান মণিহার সঙ্গীত একাডেমী-তে তিনি শাস্ত্রীয় সঙ্গীতের ওপর পাঁচ বছর মেয়াদী একটি কোর্স গ্রহণ করেন।

বাপ্পা মজুমদার তার সঙ্গীত ক্যারিয়ার শুরু করেন গিটারিস্ট হিসেবে। এরপর বিভিন্ন শিল্পীর সঙ্গে সহশিল্পী হিসেবে গান করেছেন তিনি। একক সঙ্গীতশিল্পী হিসেবে বাপ্পা মজুমদার আত্মপ্রকাশ করেন ১৯৯৫ সালে। সে বছর তার প্রথম অ্যালবাম ‘তখন ভোর বেলা’ প্রকাশিত হয়।

একক ক্যারিয়ারের পাশাপাশি বাপ্পা মজুমদার একজন ব্যান্ড মিউজিশিয়ানও। ১৯৯৬ সালে তিনি ও সঞ্জীব চৌধুরী মিলে গঠন করেছিলেন ‘দলছুট’ ব্যান্ড। দলটি এখনো শ্রোতাদের কাছে জনপ্রিয়।

এ পর্যন্ত বাপ্পা মজুমদার দশটি অ্যালবাম প্রকাশ করেছেন। এগুলো হলো- ‘তখন ভোর বেলা’, ‘কোথাও কেউ নেই’, ‘রাতের ট্রেন’, ‘ধুলো পড়া চিঠি’, ‘ক’দিন পরে ছুটি’, ‘দিন বাড়ি যায়’, ‘বেঁচে থাক সবুজ’, ‘সূর্যস্নানে চল’, ‘এক মুঠো গান’, ‘জানি না কোন মন্তরে’।

বাপ্পা মজুমদারের গাওয়া বহু গান জনপ্রিয়তা পেয়েছে। এর মধ্যে রয়েছে- ‘দিন বাড়ি যায়’, ‘পরী’, ‘সূর্যস্নানে চল’, ‘তাও কেন দেখছো না’, ‘জানালার গ্লাস’, ‘তুমি আমার বায়ান্ন তাস’, ‘জানি না কোন মন্তরে’ ইত্যাদি।

চলচ্চিত্রেও গান করেছেন বাপ্পা মজুমদার। ২০১৭ সালে মুক্তি পাওয়া ‘সত্তা’ সিনেমার ‘জানি না কোন অপরাধে’ গানের সুর করেছিলেন তিনি। এই গানের জন্য বাপ্পা শ্রেষ্ঠ সুরকার হিসেবে জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার অর্জন করেছিলেন।

ব্যক্তিগত জীবনে বাপ্পা মজুমদার দুটি বিয়ে করেছেন। ২০০৮ সালে তিনি ঘর বাঁধেন অভিনেত্রী মেহবুবা মাহনূর চাঁদনীর সঙ্গে। ২০১৭ সালে তাদের বিচ্ছেদ হয়ে যায়। এরপর অভিনেত্রী ও উপস্থাপক তানিয়া হোসাইনকে বিয়ে করেন বাপ্পা।

 

 

নিউজজি/কেআই

পাঠকের মন্তব্য

লগইন করুন

ইউজার নেম / ইমেইল
পাসওয়ার্ড
নতুন একাউন্ট রেজিস্ট্রেশন করতে এখানে ক্লিক করুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

copyright © 2021 newsg24.com | A G-Series Company
Developed by Creativeers