অন্যান্য
  >
বিশ্বকাপ

দাপুটে জয়ে সেমিফাইনালে ইংল্যান্ড

ক্রীড়া ডেস্ক ৩ জুলাই , ২০১৯, ২৩:৩৮:৫১

  • ছবি: ক্রিকইনফো

জনি বেয়ারস্টোর টানা সেঞ্চুরির সুবাদে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে চ্যালেঞ্জিং সংগ্রহ গড়েছিল ইংল্যান্ড। তার উপর ভর করে দলটির বোলাররা শুরু থেকেই পরীক্ষা নিলেন কিউই ব্যাটিং লাইনআপের। শেষ পর্যন্ত সেই ধারা ধরে রাখল স্বাগতিকরা। আর তাতে দাপুটে জয়ে সব শঙ্কা উড়িয়ে চলতি বিশ্বকাপের সেমিফাইনালে জায়গা করে নিল ইয়ন মরগানের। 

চেস্টার লি স্ট্রিটের দা রিভারসাইড ডারহামে বুধবার নিউজিল্যান্ডকে ১১৯ রানে হারিয়েছে ইংল্যান্ড। এরআগে টস জিতে বেয়ারস্টোর সেঞ্চুরিতে (১০৬ রান) ভর করে ৮ উইকেটে ৩০৫ রান করে ইংল্যান্ড। পরে বল হাতে কিউইদের মাত্র ৪৫ ওভারে ১৮৬ রানে গুটিয়ে দেয় ইংলিশরা। আর তাতে চলতি বিশ্বকাপে সেমিফাইনালে ওঠা নিশ্চত হয়ে যায় দলটির। 

রান তাড়ায় টম ল্যাথাম ছাড়া নিউজিল্যান্ডের আর কোন ব্যাটসম্যান দাঁড়াতেই পারেনি ইংল্যান্ড বোলারদের সামনে। যার শুরুটা হয়েছিল ইনিংসের প্রথম ওভারের পঞ্চম বল থেকেই। সে সময় হেনরি নিকলসকে এলবিডব্লিয়ের ফাঁদে ফেলেন ক্রিস ওকস। এর কিছুক্ষণ পরই মার্টিন গাপটিলকে উইকেটের পেছনে জস বাটলারের ক্যাচে সাজঘরের পথ ধরান আর্চার। 

১৪ রানে ২ উইকেট হারিয়ে বিপদে পড়া নিউজিল্যান্ডের কিছুটা আশা অবশ্য জাগিয়েছিলেন কেন উইলিয়ামসন ও রস টেইলরের তৃতীয় উইকেট জুটি। সে সময় তারা দলীয় স্কোর বোর্ডে যোগ করেছিলেন ৪৭ রান। তবে তাদের বেশিদূর আর এগোতে দেননি উড। রান আউটে ফিরিয়ে দেন উইলিয়ামসকে (২৭)। কিছুক্ষণ পরেই একই ভুলে কাটা পড়েন টেইলরও (২৮)। তাদের দ্রুত বিদায়ে আবারও বড় বিপদে পড়ে কিউইরা। শেষ পর্যন্ত অবশ্য ল্যাথাম এক প্রান্ত আগলে দারুণ ব্যাটিং করলেও সঙ্গী হিসেবে তেমন কাউকে পাননি তিনি। ৩৯তম ওভারের তৃতীয় বলে শেষ পর্যন্ত এ বাঁহাতি ফেরেন। তাকে সাজঘরের পথ দেখান লিয়াম প্ল্যাঙ্কেট। ফেরার আগে কিউই এ ব্যাটসম্যান করেন ৬৫ বলে ৫ চারে ৫৭ রান। 

ইংল্যান্ডের সফল বোলার মার্ক। ৯ ওভারে মাত্র ৩৪ রানে তিনি নিয়েছেন ৩টি উইকেট। এদিকে ক্রিস ওকস ৮ ওভার হাত ঘুরিয়ে পকেটে পুরেন ৪৪ রানে ১টি উইকেট। এছাড়া জাফ্রা আর্চার ৭ ওভারে মাত্র ১৭ রানে নেন ১টি উইকেট। লিয়াম প্ল্যাঙ্কেট ৮ ওভারে ২৮ রানের বিনিময়ে নেন ১টি উইকেট। আদিল রশিদ ও বেন স্টোকসও নেন ১টি করে উইকেট। 

এরআগে টস জিতে ব্যাট করতে নামা ইংল্যান্ডের দুর্দান্ত শুরু এনে দেন দুই ওপেনার জেসন রয় ও বেয়ারস্টো। পরে তাদের ১২৮ রানের জুটিকে থামান ষষ্ঠ বোলার হিসেবে আক্রমণে আসা জিমি নিশাম ফিরিয়ে দেন ৮ চারে ৬০ রান করা রয়কে।

জো রুট খেলছিলেন আস্থার সঙ্গে। দ্রুত জমে যায় বেয়ারস্টোর সঙ্গে তার জুটি। তাতে ৩০ ওভারে ১ উইকেটে ১৯৪ রানের দৃঢ় ভিতের ওপর দাঁড়ায় ইংল্যান্ড। পরের ওভারের প্রথম বলে রুটকে কটবিহাইন্ড করে জুটি ভাঙেন বোল্ট।

রুট ফিরলেও ৪৬ বলে পঞ্চাশ ছোঁয়া বেয়ারস্টো ৯৫ বলে তুলে নেন সেঞ্চুরি। এরপর বেশিদূর এগোতে পারেননি। বোল্ড হয়ে যান দলে ফেরা ম্যাট হেনরির দারুণ এক ডেলিভারিতে। তার আগে এ ডানহাতি করেন ৯০ বলে ১৫ চার ও এক ছয়ে ১০৬ রান। শেষ দিকে অধিনায়ক ওয়েন মরগানের ৪২ রানের ওপর ভর করে তিনশ ছাড়ায় ইংল্যান্ডের সংগ্রহ। ৯ উইকেট হাতে থাকার পরও স্বাগতিকরা শেষ ২০ ওভারে তুলতে পারে কেবল ১১১ রান।

নিশাম, বোল্ট ও হেনরি নেন দুটি করে উইকেট। টিম সাউদি খরুচে বোলিং করে নেন একটি উইকেট।

নিউজজি/সিআর

পাঠকের মন্তব্য

লগইন করুন

ইউজার নেম / ইমেইল
পাসওয়ার্ড
নতুন একাউন্ট রেজিস্ট্রেশন করতে এখানে ক্লিক করুন
copyright © 2021 newsg24.com | A G-Series Company
Developed by Creativeers