খেলা

এই প্রথম সব ম্যাচ অফিসিয়াল বাংলাদেশী

স্পোর্টস রিপোর্টার জানুয়ারী ১৮, ২০২১, ২০:৫৫:০৪

  • তিন আম্পায়ার গাজী সোহেল,শরফুদ্দৌলা ইবনে শহীদ সৈকত ও মাসুদুর রহমান মুকুল। ওয়ানডে সিরিজের প্রথম ম্যাচে এই তিনজন থাকছেন ম্যাচ অফিসিয়াল।ছবি-সংগৃহিত

দ্বি-পাক্ষিক টি-২০ সিরিজ কিংবা ম্যাচে দুই এন্ডে স্বাগতিক দেশের আম্পায়ার ম্যাচ পরিচালনা করবেন, আইসিসির সর্বশেষ এই আইন অনুযায়ী হোমে এতোদিন দুই এন্ডে টি-২০ ম্যাচ পরিচালনা করেছে বাংলাদেশী আম্পায়ার।

২০০১ ও ২০০২ সালে বাংলাদেশে অনুষ্ঠিত ওয়ানডে ম্যাচে দুই এন্ডে বাংলাদেশের আম্পায়াররা আম্পায়ারিং করলেও ২০০৩ সাল থেকে এক এন্ডে নিরপেক্ষ আম্পায়ার নিযুক্ত করার বিধান আইসিসি যুক্ত করায় সে অধিকার হারায় বাংলাদেশের আম্পায়াররা।

তবে দেশের মাটিতে টি-২০তে দুই এন্ডে বাংলাদেশের আম্পায়ার আম্পায়ারিং করলেও নিরপেক্ষ ম্যাচ রেফারি কিন্তু নিযুক্ত করেছে আইসিসি।  

  তবে ২ ফিল্ড আম্পায়ারের সাথে ম্যাচ রেফারি-এই প্রথম অল বাংলাদেশী ম্যাচ অফিসিয়ালের দৃষ্টান্ত এবারই প্রথম স্থাপন করতে যাচ্ছে বাংলাদেশ। আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে কোভিড-১৯ রুলসের সুবাদে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে আসন্ন ওয়ানডে সিরিজে এই সুযোগ পাচ্ছে বাংলাদেশের ম্যাচ অফিসিয়ালরা। 

আসন্ন ওয়ানডে সিরিজ উপলক্ষ্যে সোমবার ম্যাচ অফিসিয়ালদের নাম ঘোষনা করেছে বিসিবি। হোমে এই প্রথম আন্তর্জাতিক ম্যাচে ম্যাচ রেফারি হিসেবে অভিষেক হতে যাচ্ছে বাংলাদেশের সাবেক জাতীয় ক্রিকেটার নিয়ামুর রশিদ রাহুলের। তার সঙ্গে ফিল্ড আম্পায়ার হিসেবে থাকছেন শরফদ্দৌলা ইবনে শহীদ সৈকত,মাসুদুর রহমান মুকুল,গাজী সোহেলও তানভীর আহমেদ।

সাবেক জাতীয় ক্রিকেটার সৈকত ওয়ানডে সিরিজের তিন ম্যাচেই করবেন আম্পায়ারিং। প্রথম ম্যাচে তার পার্টনার হচ্ছেন মাসুদুর রহমান মুকুল,দ্বিতীয় ম্যাচে গাজী সোহেল, তৃতীয় ম্যাচে তানভির আহমেদ। টিভি আম্পায়ার হিসেবে ২ ম্যাচ বরাদ্দ হয়েছে গাজী সোহেলের (১ম এবং তৃতীয়), মুকুল পাচ্ছেন এক ম্যাচ (২য়)। রিজার্ভ আম্পয়ার হিসেবে সর্বোচ্চ ২ ম্যাচ বরাদ্দ পেয়েছেন তানভির আহমেদ,১ ম্যাচ বরাদ্দ পেয়েছেন মুকুল। ওয়ানডে সিরিজের সব ম্যাচ অফিসিয়াল বাংলাদেশী হলেও ডিআরএস টেকনোলজির জন্য তিন টেকনিশিয়ান এসেছে বিদেশ থেকে। 

করোনার কারণে ওয়ানডে সিরিজে সব ম্যাচ অফিসিয়াল বাংলাদেশের, আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে বাংলাদেশের আম্পায়ারিং ইতিহাসে এটা একটা নতুন দৃষ্টান্ত বলে উল্লেখ করেছেন আম্পায়ার্স এন্ড স্কোরার্স এসোসিয়েশনের সাধারন সম্পাদক সয়লাব হোসেন টুটুল-‌' এর আগে ২০০১ এবং ২০০২ সালে জিম্বাবুয়ে এবং পাকিস্তানের বিপক্ষে দ্বি-পাক্ষিক ওয়ানডে সিরিজে দুই এন্ডে বাংলাদেশের আম্পায়ার আম্পায়ারিং করেছে। ২০০৩ সাল থেকে আইসিসি রুলসে পরিবর্তন এনেছে। ওয়ানডে সিরিজে এক এন্ডে নিরপেক্ষ আম্পায়ার নিযুক্তির বিধান করেছে। বাংলাদেশে অনুষ্ঠিত টি-২০ সিরিজে অবশ্য ২ এন্ডে বাংলাদেশী আম্পায়ার দিতে পেরেছি। তবে ম্যাচ রেফারি কখনও কিন্তু ছিল না বাংলাদেশের কেউ। সে কারণেই এক সিরিজে সব ম্যাচ অফিসিয়াল বাংলাদেশের। এটা একটা নতুন দৃষ্টান্ত। করোনার কারণেই এই সুযোগ পেলাম আমরা। 

এদিকে মিরপুর শের-ই-বাংলা স্টেডিয়ামের একাডেমী ভবনে গত ১৫ জানুয়ারি করোনা পরীক্ষা দিয়ে ৪ দিনের কোয়ারেন্টিন শেষে সোমবার দ্বিতীয় করোনা পরীক্ষার নমুনা দিয়ে জৈব সুরক্ষায় হোটেল সোনারগাঁয়ে সোমবার উঠেছেন ম্যাচ অফিসিয়ালরা।

টেস্ট সিরিজে অবশ্য বাংলাদেশী অল ম্যাচ অফিসিয়ালের সুযোগ নেই। ২ ম্যাচের টেস্ট সিরিজে আম্পায়ারিং করতে ইংলিশ আম্পায়ার ক্যাটেলব্রো আগামী ২৫ জানুয়ারি আসছেন বাংলাদেশে। তবে টেস্ট সিরিজেও ম্যাচ রেফারি হিসেবে বহাল থাকছেন নিয়ামুর রশিদ রাহুল,এবং এক এন্ডে আম্পায়ারিং করবেন শরফুদ্দৌলা ইবনে শহীদ সৈকত।

পাঠকের মন্তব্য

লগইন করুন

ইউজার নেম / ইমেইল
পাসওয়ার্ড
নতুন একাউন্ট রেজিস্ট্রেশন করতে এখানে ক্লিক করুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

copyright © 2021 newsg24.com | A G-Series Company
Developed by Creativeers