খেলা

মিরাজের ক্যারিয়ার সেরা বোলিং ম্লান করে জয়ে বিপিএল শুরু বরিশালের

শামীম চৌধুরী জানুয়ারী ২১, ২০২২, ১৭:৩৩:৫৭

  • মিরাজকে ঘিরে টিমমেটদের উৎসব। এ উৎসব থামিয়ে দিয়েছে ফরচুন বরিশাল। ছবি-বিসিবি


চট্টগ্রাম চ্যালেঞ্জার্স : ১২৫/৮ (২০.০ ওভারে)
ফরচুন বরিশাল : ১২৬/৬ (১৮.৪ ওভারে)
ফল : ফরচুন বরিশাল ৪ উইকেটে জয়ী।
ম্যান অব দ্য ম্যাচ : মেহেদী হাসান মিরাজ (চট্টগ্রাম চ্যালেঞ্জার্স)।

টার্গেটটা টোয়েন্টি-২০ তে মোটেও কঠিন হওয়ার কথা নয়। অথচ, ১২৬ রানের চ্যালেঞ্জ দিয়ে ফরচুন বরিশালকে বড় ধরনের ঝাঁকুনি দিযেছে চট্টগ্রাম চ্যালেঞ্জার্স। সেই ধাক্কা সামাল দিয়ে ৮ বল হাতে রেখে ৪ উইকেটে জিতে বিপিএলের ৮ম সংস্করণ শুরু করেছে সাকিবের ফরচুন বরিশাল।  
১৫তম ওভারে ক্লাইমেক্সের জন্ম দিয়েছিলেন অফ স্পিনার মিরাজ। ওই ওভারের প্রথম বলে সৈকত আলীর কাছে ছক্কা খেয়ে পরের দুই বলে সৈকত আলী (৩৯) এবং ইরফান শুকুরকে (০)দিয়েছেন ফিরিয়ে, ওভারের শেষ বলে আফিফের ডাইরেক্ট থ্রো তে রান আউট সালমান (০)।
বিপিএলের উদ্বোধনী ম্যাচে অফ স্পিনার মিরাজ করেছেন ক্যারিয়ার সেরা বোলিং (৪-০-১৬-৪)। প্রথম স্পেলটি ছিল তার এক কথায়  অসাধারণ (৩-০-১০-২)। মিরাজের প্রথম স্পেলে (তৃতীয় বলে) শান্ত সুইপ করতে যেয়ে হয়েছেন বোল্ড (১),মিরাজের তৃতীয় ওভারে সাকিবও ক্রস খেলতে যেয়ে ব্যাট-প্যাডের ফাঁক দিয়ে হয়েছেন বোল্ড (১৬ বলে ১৩)।

ব্যাটিং পাওয়ার প্লে-তে চট্টগ্রামের চেয়েও দুরাবস্তা ছিল বরিশালের (২৮/২)। সেখান থেকে দলকে টেনে তুলেছেন সৈকত আলী।  চট্টগ্রাম চ্যালেঞ্জার্স অধিনায়কের বোলিং ম্লান হয়েছে সৈকত আলী (৩৫ বলে১ চার, ২ ছক্কায় ৩৯) ব্যাটিংয়ে। তৃতীয় উইকেট জুটিতে ৩৪, চতুর্থ উইকেট জুটিতে ৩০ রানের কারিগর এই ব্যাটার। ৭ম উইকেট জুটিতে ডুয়াইন ব্রাভো (১০ বলে ১২), জিয়ার (১৯ বলে ২২)  ৩৪ রানের অবিচ্ছিন্ন পার্টনারশিপে প্রত্যাশিত জয় পেয়েছে ফরচুন বরিশাল।  
বিপিএলের শুরুতে মিরপুর শের-ই-বাংলা স্টেডিয়ামের উইকেট থেকে আসবে না প্রত্যাশিত রান-বিপিএলের প্রথম সংস্করণ থেকেই উইকেটের এই বৈশিষ্ট্যের সঙ্গে পরিচিত মিডিয়া। ৮ম সংস্করেণের উদ্বোধনী ম্যাচেও তার ব্যতিক্রম হয়নি। উদ্বোধনী ইনিংসে ৫০% বল হয়েছে ডট। ৬০টি ডট বলের মাশুল দিয়েছে চট্টগ্রাম চ্যালেঞ্জার্স। প্রথমে ব্যাট করে চট্টগ্রাম চ্যালেঞ্জার্স করেছে ১২৫/৮।
নতুন উইকেটে টসে জিতলে ফিল্ডিংয়ের সিদ্ধান্ত নেয়া বুদ্ধিমানের কাজ। সাকিব সেই সিদ্ধান্তই নিয়েছেন। নতুন বলে এক এন্ডে অফ স্পিনার নাইম হাসান, অন্য এন্ডে নিজে বোলিং শুরু করায় ব্যাটিং পাওয়ার প্লে-কে কাজে লাগাতে পারেনি চট্টগ্রাম চ্যালেঞ্জার্স (৩৬/৩)। এই পর্বে কেন্নার লুইস (৬), আফিফ (৬),সাব্বির (৮) হারিয়েছে চট্টগ্রাম চ্যালেঞ্জার্স।   
ইনিংসের প্রথম বলে নাইম হাসানকে লং অনের উপর দিয়ে কেন্নার লুইসের ছক্কায় ব্যাটিং ধামাকা দেখার স্বপ্ন দেখেছেন যারা, পরক্ষণেই তাদেরকে হতাশ হতে হয়েছে।
সাকিবের মিতব্যয়ী দুই স্পেলের (১-০-২-০ ও ১-০-১-১)) ব্যাটিং পাওয়ার প্লে-তে ক্যারিবিয়ান পেসার আলজেরি জোসেফ এর স্পেলটাই (২-০-১৩-১) ব্যাকফুটে নামিয়ে এনেছে চট্টগ্রাম চ্যালেঞ্জার্সকে।
নিউ জিল্যান্ড সফর থেকে বিরত থাকা সাকিব এদিন বোলিংয়ে ছিলেন কিপ্টে (৪-০-৯-১)। ওভারপ্রতি খরচা এই বাঁ হাতি স্পিনারের ২.২৫। সাব্বিরকে এলবিডাব্লুউতে (৮) ফিরিয়ে দেয়া সাকিব এদিন পেতে পারতেন আরও একটি উইকেট। বেনি হাওয়েলের উইকেট থেকে সাকিবকে বঞ্চিত করেছেন উইকেট কিপার ইরফান শুকুর।  
প্রথম স্পেলে (২-০-২০-১) মার খেয়ে অফ স্পিনার নাইম ফিরেছেন দ্বিতীয় স্পেলে (২-০-৫-১)। বাঁ হাতি ইংলিশ লেগ স্পিনার জ্যাকব লিন্টটও করেছেন মিতব্যয়ী বোলিং (৪-০-১৮-১)। তবে ক্যারিবিয়ান পেসার আলজেরি জোসেফ ৩ উইকেট পেলেও খরচা করেছেন ওভারপ্রতি ৮ রান (৪-০-৩২-৩)। ৫১৩ ম্যাচে ৫৫৩ উইকেটে টোয়েন্টি-২০ ক্রিকেটে সবচেয়ে সফল বোলার ডুয়াইন ব্রাভোর খরচা ১ উইকেটে ৩৯ রান।

ফ্রান্সের ছেলে বেনি হাওয়েলের উইকেটটি পেয়েছেন ব্রাভো। তবে আবুধাবি টি-১০ লিগে ব্যাটিংয়ে ব্যর্থ  বেনি হাওয়েলের কল্যানেই তিন অংকের নাগাল পেয়েছে চট্টগ্রাম চ্যালেঞ্জার্স (২০ বলে ৩ চার, ৩ ছক্কায় ৪১)। বেনি হাওয়েলের কারণেই শেষ ৩০ বলকে প্রকৃত স্লগে রূপ দিয়ে ৫২ রান যোগ করতে পেরেছে চট্টগ্রাম চ্যালেঞ্জার্স।  তবে ব্যবধান তৈরি করেছে ডট বল। চট্টগ্রাম চ্যালেঞ্জার্স যেখানে ৬০টি ডট করেছে, সেখানে ফরচুন বরিশাল করেছে ৪৭টি ডট।
 

পাঠকের মন্তব্য

লগইন করুন

ইউজার নেম / ইমেইল
পাসওয়ার্ড
নতুন একাউন্ট রেজিস্ট্রেশন করতে এখানে ক্লিক করুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ