বিদেশ

বাইডেন-পুতিন বৈঠক শুরু

নিউজজি ডেস্ক ১৬ জুন , ২০২১, ১৮:৪১:৩২

  • ছবি: ইন্টারনেট

ঢাকা: সুইজারল্যান্ডের জেনেভার ভিলা লা গ্রেঞ্জে যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের সঙ্গে বহুল প্রত্যাশিত এক বৈঠকে শুরু হয়েছে।বুধবার দেশটির স্থানীয় সময় বেলা ১টার দিকে লেকের পাড়ের ভিলা লা গ্রেঞ্জে বিশ্বের চিরবৈরী দুই রাষ্ট্রপ্রধানের করমর্দনের মাধ্যমে বৈঠক শুরু হয়।  ভিলা লা গ্রেঞ্জ-এ শুরু হতে চলা এই বৈঠক দীর্ঘ চার থেকে পাঁচ ঘণ্টা বা তারও বেশি সময় ধরে চলতে পারে।

এর আগে যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের সঙ্গে বহুল প্রত্যাশিত এক বৈঠকে অংশ নিতে সুইজারল্যান্ডের জেনেভার ভিলা লা গ্রেঞ্জে পৌঁছেছেন রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন। বুধবার জেনেভার স্থানীয় সময় বেলা সাড়ে ১২টার দিকে পৌঁছান তিনি। এর কিছুক্ষণ পর মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনও সেখানে পৌঁছান।

ফরাসী বার্তাসংস্থা এএফপি বলছে, জেনেভায় স্থানীয় সময় সকাল ১২টা ২৭ মিনিটে রুশ প্রেসিডেন্ট পুতিনকে বহনকারী বিমান অবতরণ করে। মার্কিন নির্বাচনে রাশিয়ার হস্তক্ষেপ, সাইবার হামলা এবং মানবাধিকার লঙ্ঘনসহ বেশ কিছু বিষয় এই বৈঠকের আলোচ্যসূচিতে রয়েছে।

বিবিসি বলছে, যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট হিসেবে ক্ষমতায় আসার পর প্রথমবারের মতো জো বাইডেন রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট পুতিনের সঙ্গে জেনেভায় বৈঠকে বসছেন। দ্বিপাক্ষিক এই বৈঠকে অংশ নিতে বুধবার বেলা সাড়ে ১২টার দিকে জেনেভার ভিলা লা গ্রেঞ্জে পৌঁছান বাইডেন।

ভিলা লা গ্রেঞ্জে পুতিনের মতো জো বাইডেনকেও স্বাগত জানান সুইজারল্যান্ডের প্রেসিডেন্ট গাই পারমেলিন। পরে তারা ক্যামেরার সামনে দাঁড়িয়ে ছবি তোলেন।

মার্কিন কর্মকর্তারা বলেছেন, দুই নেতার এই বৈঠকটি চার থেকে পাঁচ ঘণ্টা ধরে স্থায়ী হতে পারে। চলতি সপ্তাহে রাষ্ট্রীয় টেলিভিশনকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে ভ্লাদিমির পুতিন বলেছিলেন, কিছু বিষয় আছে যেখানে আমরা যুক্তরাষ্ট্রের সাথে একসঙ্গে কাজ করতে পারি। এর মধ্যে আছে পরমাণু অস্ত্র নিয়ন্ত্রণের জন্য নতুন করে আলোচনা, সিরিয়া এবং লিবিয়ার পরিস্থিতিসহ বিভিন্ন আঞ্চলিক সংঘাত নিরসনে আলোচনা এবং জলবায়ু পরিবর্তনের মতো বিষয়।

পুতিন বলেন, যদি আমরা এসব বিষয়ে কাজ করার একটি কৌশল খুঁজে পাই, তাহলে আমরা বলতে পারবো এই শীর্ষ বৈঠক ব্যর্থ হয়নি। রাশিয়ায় কেউ কেউ এমন ইঙ্গিতও দিচ্ছেন, চলমান কূটনৈতিক যুদ্ধে একটা সাময়িক বিরতিও সম্ভব। যুক্তরাষ্ট্র সাম্প্রতিক বছরগুলোতে কয়েক ডজন রুশ কূটনীতিককে বহিষ্কার এবং দু’টি রুশ দূতাবাস ভবনও বন্ধ করে দিয়েছে।

এর পাল্টা রাশিয়ায় যুক্তরাষ্ট্রের দূতাবাসগুলোতে স্থানীয়দের নিয়োগে বিধিনিষেধ দেয়া হয়েছে। ফলে ভিসা প্রদান থেকে শুরু করে অন্যান্য সেবা নাটকীয়ভাবে কমাতে হয়েছে। তবে ন্যূনতম একটি ছাড় হিসেবে মস্কো হয়তো তার রাষ্ট্রদূতকে ওয়াশিংটনে ফিরে যেতে দিতে পারে।

শীর্ষ বৈঠকে যুক্তরাষ্ট্র হয়তো রাশিয়া বন্দি মার্কিন নাগরিকদের বিষয়টি তুলতে পারে। তাদের মধ্যে আছেন পল হুইলান, যাকে ২০১৮ সালে গ্রেফতার করা হয় এবং গুপ্তচরবৃত্তির অভিযোগে যার সাজা হয়। হুইলান অবশ্য অভিযোগটি সবসময় অস্বীকার করেছেন।

রাশিয়া সম্প্রতি দুই দেশের মধ্যে বন্দি বিনিময়ের ওপর চাপ দিচ্ছে। কিন্তু যেসব শর্ত তারা দিচ্ছে, সেগুলো মানা যুক্তরাষ্ট্রের জন্য অসম্ভব। পুতিন এককভাবে এক্ষেত্রে কোন ঔদার্যের পরিচয় দেবেন, সেটার সম্ভাবনাও কম।

নিউজজি/এস দত্ত

 

পাঠকের মন্তব্য

লগইন করুন

ইউজার নেম / ইমেইল
পাসওয়ার্ড
নতুন একাউন্ট রেজিস্ট্রেশন করতে এখানে ক্লিক করুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

copyright © 2021 newsg24.com | A G-Series Company
Developed by Creativeers