বিদেশ

জ্বালানির অপেক্ষায় ৫ দিন, অবশেষে মৃত্যু

নিউজজি ডেস্ক ২৫ জুন , ২০২২, ১৫:০৭:৩৭

  • ইন্টারনেট থেকে

ঢাকা: জ্বালানির জন্য লাইনে টানা ৫ দিন ধরে অপেক্ষা করতে করতে শেষে মারা গেছেন ৬৩ বছর বয়স্ক এক ট্রাকচালক। বৃহস্পতিবার শ্রীলঙ্কার পশ্চিমাঞ্চলীয় জেলা আঙ্গুরোয়াটোটার একটি জ্বালানি পাম্পে ঘটেছে এই ঘটনা।

আঙ্গুরোয়াটোটা জেলা পুলিশের কর্মকর্তারা এএফপিকে জানিয়েছেন, মৃত ওই ট্রাকচালক ৫ দিন আগে একটি পেট্রোল পাম্পের বাইরে ট্রাক নিয়ে লাইনে অবস্থান নেন ৬৩ বছরের ওই ট্রাক চালক। তারপর বৃহস্পতিবার লোকজন তাকে গাড়ির ভেতর মৃত অবস্থায় পড়ে থাকতে দেখে পুলিশে খবর দেয়।

৫ দিন ট্রাক নিয়ে টানা লাইনে দাঁড়িয়েছিলেন । পেট্রল পাম্পটির সামনে গাড়ির ভেতর তার মরদেহ পাওয়া যায়। পুলিশ জানায়, বৃহস্পতিবার সকালে পাম্পের বাইরে থেকে তার মরদেহ উদ্ধার করা হয়। প্রাথমিক ভাবে ধারণা করা হচ্ছে হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে তার মৃত্যু হয়েছে।

এএফপির প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, তীব্র জ্বালানি সংকটের মধ্যে থাকা শ্রীলঙ্কায় জ্বালানির জন্য দীর্ঘ লাইনে অপেক্ষা করতে করতে মৃতদের তালিকায় তিনি দশম ব্যক্তি। মর্মান্তিকভাবে মৃত্যুবরণকারী এসব ব্যক্তিদের বয়স ৪৩ থেকে ৮৪-র মধ্যে। বেশির ভাগ ক্ষেত্রেই দেখা গিয়েছে, লাইনে দাঁড়িয়ে থাকতে থাকতেই হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে মৃত্যু হয়েছে তাদের।

এক সপ্তাহ আগে রাজধানী কলম্বোর একটি পেট্রোল পাম্পে নিজের তিন চাকার অটোরিক্সার জন্য জ্বালানি কিনতে যান ৫৩ বছর বয়সী এক ব্যক্তি; কিন্তু অপেক্ষায় থাকতে থাকতে একসময় হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে ঘটনাস্থলেই মারা যান তিনি। জ্বালানি তেল সংগ্রহের লাইনে কয়েকদিন ধরে অপেক্ষা করছিলেন তিনিও।

১৯৪৮ সালে যুক্তরাজ্যের কাছ থেকে স্বাধীনতা লাভের পর ইতিহাসের সবথেকে ভয়াবহ অর্থনৈতিক সংকট পার করছে ২ কোটি ২০ লাখ মানুষ অধ্যুষিত দেশ শ্রীলঙ্কা। সীমাহীন অর্থনৈতিক অব্যবস্থাপনা ও করোনা মহামারি এই সংকটের প্রধান কারণ। বিদেশি মু্দ্রার রিজার্ভ না থাকায় জ্বালানি, খাবার এবং ওষুধের মত অতি জরুরি পণ্যও আমদানি করতে পারছে না ভারত মহাসাগরের ছোট এই দ্বীপরাষ্ট্রটি।

এর মধ্যে জ্বালানি সংকট তীব্র হয়ে উঠেছে শ্রীলঙ্কায়। ডিজেলের সরবরাহ অনিয়মিত হয়ে পড়ায় প্রয়োজনীয় বিদ্যুৎ উৎপাদন করতে পারছে না শ্রীলঙ্কার বিদ্যুৎ উৎপাদন কেন্দ্রগুলো। ফলে গত কয়েকমাস ধরে সেখানে দিনের বেশিরভাগ সময়ই বিদ্যুৎ থাকছে না। এছাড়া পেট্রোল, ডিজেল, রান্নার গ্যাস কিনতে লোকজনকে ঘণ্টার পর ঘণ্টা লাইনে দাঁড়িয়ে থাকতে হচ্ছে।

জ্বালানি বাঁচাতে ইতোমধ্যে সাপ্তাহিক কার্য দিবস ৪ দিনে নামিয়ে এনেছে দেশটির সরকার। ১৬ জুন এক সংবাদ সম্মেলনে শ্রীলঙ্কার জ্বালানি ও বিদ্যুৎমন্ত্রী জানিয়েছিলেন দেশে যে পরিমাণ পেট্রোল ও ডিজেলের মজুত রয়েছে, তাতে বড়জোর ৫ দিন কোনোভাবে চলা যাবে।

সেই হিসেবে শ্রীলঙ্কার ডিজেল ও পেট্রোলের মজুত শেষ হয়েছে গত ২১ জুন। এএফপির প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, পেট্রোল-ডিজেলের নতুন চালান কেনার মতো প্রয়োজনীয় অর্থ বর্তমানে দেশটির কেন্দ্রীয় ব্যাংকে নেই।

নিউজজি/এসজেড

 

পাঠকের মন্তব্য

লগইন করুন

ইউজার নেম / ইমেইল
পাসওয়ার্ড
নতুন একাউন্ট রেজিস্ট্রেশন করতে এখানে ক্লিক করুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ